,

ThemesBazar.Com

আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা

Spread the love

প্রতিনিধিদল ফিরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে বিক্ষোভকারীদের এ সিদ্ধান্তের বিষয় জানালে তারা তাদের ‘ভুয়া’ ‘ভুয়া’ বলে স্লোগান দেন। তারা ‘মানি না মানব না’ বলে স্লোগান দেন। তাদের কার্যকলাপে বোঝা গেল তাদের বিক্ষোভ অব্যাহত।

সরকারের পক্ষ থেকে আশ্বাসের পরও ঘরে ফিরবেন না কোটাব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করে আসা চাকরিপ্রত্যাশী ও শিক্ষার্থীরা। কোটা সংস্কারের তাৎক্ষণিক কোনো সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

‘ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ ব্যানারে এই আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

৯ এপ্রিল সোমবার রাত আটটার দিকে মামুন বলেন, ‘যতক্ষণ পর্যন্ত কোটা সংস্কারের তাৎক্ষণিক কোনো সিদ্ধান্ত না আসছে বা প্রজ্ঞাপন জারি না হচ্ছে, ততক্ষণ আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

এর আগে বিকেল ৪টা থেকে ৬টা পর্যন্ত আন্দোলনকারীদের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৈঠক করেন। সেতুমন্ত্রী তাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে আগামী ৭ মে পর্যন্ত এ আন্দোলন স্থগিত করা হয়েছে বলে জানানো হয়। যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কনফারেন্স রুমে এ বৈঠক হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘৭ মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত রাখতে সম্মত হয়েছেন। কোটাব্যবস্থা সংস্কারের দাবিগুলোর যৌক্তিকতা ইতিবাচক। তরুণরা এই  কোটা সংস্কার আন্দোলন করছেন। তারা আমাদের রাজনীতির অপরিহার্য অংশ, তারাই নতুন প্রজন্ম। আমরা এই পরবর্তী প্রজন্মের জন্যই রাজনীতি করি। তাই  শেখ হাসিনার সরকার কখনো তরুণদের যৌক্তিক দাবিকে উপেক্ষা করেনি। সেই ইতিবাচক দৃষ্টিকোণ থেকেই প্রধানমন্ত্রী আমাকে পাঠিয়েছেন। আমার সঙ্গে আমার সহকর্মীরা আছেন।’

এ সময় ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি নিয়ে একটা সমাধান খুঁজে পাওয়ার জন্য এরই মধ্যে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিশেষ  বৈঠকের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কয়েক মিনিট আগেও প্রধানমন্ত্রী আমাকে বলেছেন, তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে কোটা পদ্ধতি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছেন। আমি আন্দোলনকারীদের আশ্বস্ত করেছি, তাদের দাবির যৌক্তিকতা আমরা ইতিবাচকভাবে দেখব।’

প্রতিনিধিদল ফিরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে বিক্ষোভকারীদের এ সিদ্ধান্তের বিষয় জানালে তারা তাদের ‘ভুয়া’ ‘ভুয়া’ বলে স্লোগান দেন। তারা ‘মানি না মানব না’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

উল্লেখ্য, ৮ এপ্রিল শাহবাগ মোড়ে কোটা সংস্কারের দাবিতে অবস্থান নেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাদের হটাতে রাত ৮টার দিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ শুরু করে। এতে বহু শিক্ষার্থী আহত হন।

Print Friendly, PDF & Email

ThemesBazar.Com

      আরো পড়ুন