,

ThemesBazar.Com

আমতলীতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হাতুড়ি পেটা

Spread the love

আমতলীতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হাতুড়ি পেটা
হাসপাতাল ত্যাগের জন্য পাষন্ড স্বামীর পরিবারের হুমকি
প্রতিনিধি আমতলী (বরগুনা):
যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হাতুড়ি পেটা করেছে পাষন্ড স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের চালিতা বুনিয়া গ্রামে। গুরুতর আহতবস্থায় রোজিনাকে (২৫) আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর রোজিনার স্বামীর পরিবার থেকে হাসপাতাল ত্যাগের হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গৃহবধূ রোজিনা অভিযোগ করেন যে, ২ লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে স্বামী আল আমিন মাতুব্বর ও শ্বাশুরী পিয়ারা বেগম তাকে শুক্রবার রাত থেকে বাড়ীতে আটকে রেখে হাতুড়ি ও লাঠি দিয়ে দফায় দফায় নির্যাতন করেন। এতে রোজিনার শরীরে বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম হয়। উপজেলার পূর্বচিলা গ্রামের রোজিনার বাবা মো. ফারুক মৃধা অভিযোগ করে বলেন ২০১২ সালের জানুয়ারী মাসে একই উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া গ্রামের মো. আব্দুস ছত্তার মাতুব্বরের ছেলে মো. আল আমিন মাতুব্বরের সাথে তার মেয়ে রোজিনার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় জামাই আল আমিন মাতুব্বরকে তার চাহিদামত সংসারের মালামাল ও ঘর তোলার জন্য নগদ টাকা প্রদান করা হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই টাকার জন্য স্ত্রী রোজিনাকে প্রায় প্রতিদিনই মারধর করা শুরু করেন। ২০১৩ সালে রোজিনার কোলজুড়ে আসে মারয়িা নামের একটি কন্যা সন্তান। মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়ার পর থেকে আল আমিনের যৌতুকের আকাংঙ্খা ও চাহিদা আরো বেড়ে যায়। প্রায়ই রোজিনাকে টাকা আনার জন্য চাপ প্রয়োগ করতো। টাকা না আনলে রোজিনার উপর নেমে আসতো অমানুষিক শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন। ২০১৭ সালে রোজিনার কোলজুড়ে আসে ছবিহা নামের আরেকটি কন্যা সন্তান। দ্বিতীয় কন্যা সন্তান জন্মের পর আল আমিনের যৌতুকের চাহিদা আরো বেড়ে যায়। শুক্রবার রাত থেকে রোজিনাকে বাড়ীতে আটকে রেখে হাতুড়ি ও লাঠি দিয়ে দফায় দফায় পিটিয়ে নির্মম নির্যাতন চালায় তার পাষন্ড স্বামী ও শ্বাশুড়ী। খবর পেয়ে ২৫ মার্চ দুপুরে রোজিনা কে আটকবস্থা থেকে উদ্ধার করে তার পিতা মো. ফারুক মৃধা আমতলী উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে।
আমতলী উপজেলা হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় রোজিনার শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের চিহ্ন নিয়ে যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন।
অভিযুক্ত আল আমিন মাতুব্বরের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদ উল্যাহ জানান, এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

ThemesBazar.Com

      আরো পড়ুন