গলাচিপায় সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে  অপসারণ ও বিচারের দাবি। অতঃপর…………

গলাচিপায় সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অপসারণ ও বিচারের দাবি। অতঃপর…………

মার্চ ১৫, ২০১৮ 0 By admin
Spread the love
  • অনির্বাণ নিউজ ডেস্ক:: পটুয়াখালীর গলাচিপার চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী মোসা. তামিমা আক্তার  সহকারী শিক্ষক ইংরেজি সাব্বির আহম্মেদ নোবেল’র  বাসায় গত ০৫-০৩-২০১৮ ইংরেজি তারিখ প্রাইভেট পড়তে যায়। পড়া চলাকালিন সময় এক অপরের সাথে কথা বললে শিক্ষক   সাব্বির আহম্মেদ নোবেল একটি উম্মক্ত কলম ছুঁড়ে মারেন তামিমার দিকে । কলমটি গিয়ে তামিমার বাচোখের কর্নিয়ায় গিয়ে আঘাত হানে এবং সাথে সাথে তামিমার চোখ দিয়ে রক্ত ক্ষরণ শুরু হয়। এমতাবস্থায় তামিমা যন্ত্রণায় চিৎকার দিতে দিতে বাসায় এলে তামিমার অবস্থা দেখে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে বরিশালে নিলে সেখানে তামিমাকে চিকিৎসক ঢাকা নিয়ে চিকিৎসার পরামর্শ করলে তামিমার অবিভাবাক দ্রুত ঢাকা নিয়ে যান।   ঢাকায় চিকিৎসারত অবস্থায় চিকিৎসকের কাছে তামিমার অভিভাবক তার চোখের অবস্থা জানতে চাইলে প্রশ্নের উত্তরে চিকিৎসক ছিলেন নিরুত্তর ! তামিমার বাবা মো. আনোয়ার হোসেন খান বড় চর কাজল গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের একজন। তামিমার বাবার নিঃশ্বাস আমার মা তামিমা বাচোখে ফের পৃথিবীর আলো দেখবে কিনা এই নিয়ে পরিবারে সকলের মধ্যে দুচিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়ছি ।  উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে  গত ১১-০৩-২০১৮ ইংরেজি ছাত্রছাত্রীসহ অভিভাবক ও সচেতন নাগরিক এলাকায় ও চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ঘণ্টা ব্যাপি মানবন্ধন করেন

এবং চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  প্রধান শিক্ষক ( অভিযোগ কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন)  ,সভাপতি ( অভিযোগ কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন), উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ( অভিযোগ কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করু), উপজেলা নির্বাহী অফিসার( অভিযোগ কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন) ও সংসদ সদস্য পটুয়াখালি-৩,   সাবেক সফল বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী  জনাব আলহাজ্ব আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন,এম পি  ( অভিযোগ কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন)   বরাবর একটি অভিযোগ জমা দেয় তামিমার বড় ভাই সজিব খান ।   এই সংবাদ বিভিন্ন সংবাদপত্র ও মিডিয়া প্রকাশ হলে ১২-০৩-২০১৮ ইংরেজি বিকেল আনুমানিক ৫.৩০ মিনিটের সময় তামিমার মেজ ভাই রাজিব খান প্রয়োজনীয় কাজে যাওয়ার সময় চৌরাস্তা নামক স্থানে সাব্বির আহম্মেদ নোবেল’র সাথে দেখা হলে মোঃ রাজিব খানকে দাড় করিয়ে সাব্বির আহম্মেদ নোবেল  জিজ্ঞাসা করে কেন দরখাস্ত ও মানবন্ধন করেছি ? বলিয়া রাজিবের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং দরখাস্ত প্রত্যাহার করার হুমিক দেয় অন্যথায়  পরিবারের বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি করিবে এবং ভয়ভীতি খুন জখমের হুমকি প্রদর্শন করেন ।  এই মর্মে তামিমার ভাই মোঃ রাজিব খান  তার পরিবারের মিথ্যা মামলা হয়রানি ,ক্ষয়ক্ষতি ,ভয়ভীতি খুন জখমের ভয়ে গলাচিপা থানায় একটি সাধারন ডায়রি ( জিডি) করেন ১৫-০৩-২০১৮ ইংরেজি । গলাচিপা থানার জিডি নং- ৫৯৪কপিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

উল্লেখ্য থাকে চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের   সহকারী শিক্ষক ইংরেজি সাব্বির আহম্মেদ নোবেল’র  কিছু আমল নাম  নোবেল’র আগের স্ত্রী ও একটি পুত্র সন্তান থাকা সত্যেও তামান্না নামের  এক স্কুল ছাত্রীর সাথে  যৌন সম্পর্ক   গড়ে তোলে এবং তামান্নাকে গোপনে বিয়ে করেন একটি গোপন সুত্রে ।  তামিমার চাচাতো বোনকে নোংরা প্রস্তাব দেওয়ায় তামিমার চাচা উক্ত ঘটনা জানার পর তার মেয়েকে নোবেল এর কাছে প্রাইভেট পড়া বন্ধ করে দেন।  এমন কোন ছাত্রী নেই যে তার কাছে ছাত্রী হিসেবে গণ্য। নোবেল’র শিক্ষাগত সনদও জাল । বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরিকমিশন কর্তৃক অনুমোদিত শাখা থেকে স্নাতক ( সম্নান ) সনদ অর্জন না করে ও চর কাজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক( ইংরেজি) হিসেবে চাকরি করছেন ।নোবেল’র এই অপরাধ জগৎ এর  পিছনে আছে অনেক সহযোগী ও ইন্ধনদাতা।

 

এই সম্পর্কীও খবর

Recent Posts