ফের স্বপ্ন দেখছেন পটুয়াখালীবাসি , বাংলাদেশ জাতীয় অনূর্ধ ১৭ দলে খেলার সুযোগ পেলো তাহসিন

ফের স্বপ্ন দেখছেন পটুয়াখালীবাসি , বাংলাদেশ জাতীয় অনূর্ধ ১৭ দলে খেলার সুযোগ পেলো তাহসিন

মার্চ ১০, ২০১৮ 0 By
Spread the love

প্রতিবেদকঃ পটুয়াখালী জেলায় সোহাগ গাজীর মত স্বপ্ন দেখছেন গলাচিপাবাসি ।  গলাচিপার চর কাজল ইউনিয়নের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান মো. আলিফ নুর ( আনিছুর রহমান) এর ছোট ছেলে মো. তাহসিন বাংলাদেশ জাতীয় অনূর্ধ ১৭ দলে খেলার সুযোগ পেয়েছেন ।
ছোট বেলা থেকেই খেলাধুলার প্রতি প্রবল আগ্রহ ছিল তার। সেই প্রবল ইচ্ছা আর হার না মানার দৃঢ় প্রত্যয়ই তাকে আজ নিয়ে গিয়েছে সফল্যের খুব কাছাকাছি। কে ভেবেছিল সেই ছোট্ট এক গ্রাম থেকে এতবড় প্লাটপর্মে পৌছাতে পারবে সে? হয়ত কারো জানা ছিল না । তবে জানা না থাকলেও তাহসিন ঠিকই জানত তার আত্মবিশ্বাসের কথা। তাহসিন এস.এস.সি পাশ করে চর-কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এবং বর্তমানে সে কে. আলী কলেজে বিজ্ঞান বিষয়ে অধ্যায়নরত আছে। লেখাপড়ার প্রতি তার মনোযোগ কিছুটা কমই ছিল, তার কারণ হয়ত ছিল এই ক্রিকেট। কোন এক সময় হয়ত বাবা-মা ও বকা দিয়ে বলেছেন, “এই ক্রিকেটের ভুত মাথা থেকে ফেলে দিয়ে একটু লেখাপড়া কর”। তবে তাহসিন তার ইচ্ছা, তার সপ্নকে বাস্তবায়ন করতে অটুট ছিল। এমনকি ঈদের সময় কিংবা কোন অনুষ্ঠানে সে বাবার কাছে কখনও কোন পোশাক বা কোন জিনিস চাইত না, তার চাওয়া ছিল শুধুই একটি ভালো ব্যাট আর ক্রিকেট সামগ্রী। বিভিন্ন জায়গায় খেলে পেয়েছেন বিভিন্ন পুরস্কার। ছোট ভাইয়ের এই ইচ্ছা শক্তির প্রতি আগ্রহ দেখাতে মোটেও ভুল করেনি তাহসিনের বড় ভাই ইকরামুল ইসলাম আসিফ। খেলোয়াড় নেওয়ার খবর পেয়েই ছোট ভাইকে নিয়ে ছুটে চলে গেছেন বি.কে.এস.পি-তে। পরীক্ষার বিভিন্ন ধাপ পারি দিয়ে শেষ-মেশ মেডিকেল পর্যন্ত টিকে ছিল তাহসিন। তবে পরে আর তারা ডেিক নি। ইচ্ছা শক্তির জোরে পরবর্তী বছরে আবারও বি.কে.এস.পি-তে যায় সে। তবে ফলাফল পজেটিভ না হওয়ায় ভেঙে পড়েছিল তাহসিন। ঠিক ঐ সময় মাঠে খেলতে থাকা জাতীয় দলের ক্রিকেটার মুশফিক, নাসির ও সোহাগ গাজী তার সপ্নের দালানকে রাজপ্রাসাদে পরিণত করে দেয়। সোহাগ গাজী বলেন, “মন খারাপ করার মত কিছু নেই, বি.কে.এস.পি থেকেই যে জাতীয় টিমে যেতে হবে তা তো কোন কথা না, অন্য জায়গা থেকেও তো আসতে পারে।” পরে সোহাগ গাজী তাহসিনের বড় ভাইকে পরামর্শ দেয় পটুয়াখালী একাডেমীতে ভর্তি করানোর। তাতে তাহসিনের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়………পরে তাকে পটুয়াখালীর শ্যামল কোচের অধীনে অনুশীলনের জন্য ভর্তি করেন। তারই হাত ধরে আজ তাহসিন বাংলাদেশ জাতীয় অনূর্ধ ১৭ দলের সদস্য। শুধু ক্রিকেটার হিসেবেই নয়, তাহসিনের সুনাম রয়েছে একজন আদর্শ ও বুদ্ধিমান মানুষ হিসেবেও। তাহসিনের চিন্তা-শক্তি তার ক্রিকেট খেলার মতই প্রখর। এই তথ্য প্রযুক্তির যুগেও তাহসিন ব্যবহার করে না কোন ইন্টারনেট বা ফেইসবুক। সব মানুষই চায় তার নাম সবাই জানুক। তবে তাহসিন তার থেকে একটু আলাদা. !
অনূর্ধ ১৫ দলের ফাইনাল বাছাইয়ের জন্য মনোনয়ন পেলে, গলাচিপার বার্তা তাকে নিয়ে একটি নিউজ প্রকাশ করতে চায়। কিন্তু তাহসিন বলে, “আমি ফাইনাল একাদশের তালিকায় না আসা পর্যন্ত কোন খবর প্রকাশ করতে ইচ্ছুক নই।” এই কথাটুকুই তার বিচক্ষণতার প্রমাণ দিয়ে দেয়। সমাজের সবার জন্য তাহসিন এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। যার জ্যোতিতে আলোকিত হবে, বৈদ্যুতিক সংযোগ ও সহজ যাতায়াত ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন্ চর-কাজল এলাকা।

 

Print Friendly, PDF & Email