রাখঢাক রাখছেন না পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি

মার্কিন মুলুকে আবার সাড়া ফেলে দিয়েছেন সাবেক পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি। যার প্রকৃত নাম স্টেফানি ক্লিফোর্ড। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তার যৌন সম্পর্কের কথা ফাঁস করে ব্যাপক আলোচনায় রয়েছেন। এবার তিনি নিজের স্মৃতিকথা প্রকাশ করছেন। এর নাম ‘ফুল ডিসক্লোজার’। এতে কোনোকিছু গোপন না রেখে একেবারে ঢেলে দিয়েছেন সব। বলে দিয়েছেন ট্রাম্পের সঙ্গে তার সম্পর্কের সব কথা। বইটি বাজারে আসার কথা ২রা অক্টোবর।

প্রকাশ করছে সেইনট মার্টিনস প্রেস। ডানিয়েল স্টর্মি তার বন্ধুদের কাছে বলেছেন, ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণার সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে চান নি ট্রাম্প। ওই বইয়ের একটি কপি এসেছে লন্ডনের প্রভাবশালী পত্রিকা গার্ডিয়ানের হাতে। সেখান থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে ডানিয়েল স্টর্মির এ কথা প্রকাশ করা হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য, বইটি এমন এক সময়ে প্রকাশ হচ্ছে যখন আগামী ৬ই নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচনের বাকি থাকবে মাত্র কয়েকদিন। এমনিতেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা কমে গেছে। তার ওপর এ বই তার ইমেজকে কোথায় নিয়ে যাবে তা এখন দেখার বিষয়। ওদিকে ট্রাম্পকে নিয়ে এরই মধ্যে বেশ কতগুলো বই প্রকাশ হয়েছে।

তার মধ্যে ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারি উদঘাটনকারী বিখ্যাত সাংবাদিক বব উডওয়ার্ডের বই প্রকাশ হয়েছে। স্মৃতিকথা লিখেছেন হোয়াইট হাউসের সাবেক সহযোগী ওমারোসা ম্যানিগাল্ট নিউম্যান। উপরন্তু সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক টাইম প্রশাসনের একজন কর্মকর্তার নাম গোপন রেখে প্রকাশ করেছে একটি মতামত কলাম। তাতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। এসব বইয়ে যেসব অভিযোগ তুলেছেন তারা তাকে ‘ফিকশন’ বলে আখ্যায়িত করেছে হোয়াইট হাউস। তবে তারা ডানিয়েল স্টর্মির বইয়ের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করে নি।

গার্ডিয়ান লিখেছে, ডানিয়েল স্টর্মি তার বইয়ে লিখেছেন, ২০০৬ সাল। ক্যালিফোর্নিয়ার লেক তাহোই। সেখানে সেলিব্রেটি গলফ টুর্নামেন্ট চলছিল। সে সময়ে ট্রাম্পের সঙ্গে শয্যাসঙ্গী হয়েছিলেন তিনি। তার ভাষায়, আমার জীবনে
যত যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছি তার মধ্যে ওই সম্পর্কটা ছিল সবচেয়ে অনাকর্ষণীয়। কিন্তু এটা সুস্পষ্ট, তিনি এমন অভিমত শেয়ার করেন নি।

এতে ডানিয়েল স্টর্মি আরো লিখেছেন, ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণার শেষ পর্যন্ত ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হবেন এমনটা কখনো গুরুত্ব দিয়ে ভাবি নি। আমি তখন বলতাম- এটা কখনো হবার নয়। এমন কি তিনি (ট্রাম্প) প্রেসিডেন্ট হতেও চান নি।

ট্রাম্পে নির্বাচন যখন ঘনিয়ে আসে, তখন ডানিয়েল স্টর্মি তার সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পর্ক নিয়ে প্রকাশ্যে আসার সিদ্ধান্ত নেন। এর মধ্যে তিনি নিজেকে নিরাপদ করতে চেয়েছিলেন।
ডানিয়েল স্টর্মির সঙ্গে যৌন সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তার সাবেক ব্যক্তিগত আইনজীবী মাইকেল কোহেন বেশ কয়েকবার স্বীকার করেছেন,  ডানিয়েল স্টর্মি  যাতে মুখ না খোলেন এজন্য তাকে মোটা অঙ্কের অর্থ দেয়া হয়েছিল। এর মাধ্যমে তিনি নির্বাচনী অর্থ সংক্রান্ত আইন লঙ্ঘন করেছেন এবং অর্থ দিয়েছেন মর্মে তাকে দোষী দেখানো হয়েছে।

শর্টলিংকঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *