বরিশালে আওয়ামী লীগের আনন্দ মিছিল, বিএনপিকে রিকশায় বাড়ি পাঠাল পুলিশ

বহুল আলোচিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বরিশালে আনন্দ মিছিল করেছে আওয়ামী লীগ। অপরদিকে বিএনপি’র গুটিকয়েক নেতাকর্মী দলীয় কার্যালয় চত্বরে জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলেও পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

বুধবার বেলা ১২টার দিকে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণার আগেই নগরীর সদর রোডের দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল, সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজ এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস এমপিসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পরপরই তারা নগরীতে একটি আনন্দ মিছিল করেন। মিছিল থেকে অবিলম্বে এই রায় কার্যকর করার দাবি জানানো হয়।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজ বলেন, এই রায় ঘোষণার মধ্য দিয়ে জাতি কিছুটা কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। রায় কার্যকর হলে জাতি পুরোপুরি কলঙ্কমুক্ত হবে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল বলেন, এই রায় আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় একটি মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে।

জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস এমপি বলেন, এই রায়ে আওয়ামী লীগ সন্তুষ্ট। জাতি সন্তুষ্ট। এই রায় অবিলম্বে কার্যকর করার দাবি জানান তিনি।

এদিকে রায় ঘোষণার আগেই বিএনপি’র বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট বিলকিস জাহান শিরিনের নেতৃত্বে বিএনপি’র গুটি কয়েক নেতা পুলিশের কঠোর বেষ্টনী ভেদ করে সদর রোডের দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হয়। তবে রায় ঘোষণার পর বিএনপিকে কোন মিছিল কিংবা বিক্ষোভ করতে দেয়নি পুলিশ। এ সময় সাবেক এমপি শিরিনের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা দলীয় কার্যালয় থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে পুলিশ। এক পর্যায়ে তাদের রিকশায় উঠিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয় পুলিশ।

এ সময় এই রায় প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি’র বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শিরিন বলেন, সরকার আদালত নিয়ন্ত্রণ করে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে দণ্ডিত করেছেন। বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করাসহ জিয়া পরিবারকে ধ্বংস করার জন্যই উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই রায় দেওয়া হয়েছে অভিযোগ করেন তিনি।

অপরদিকে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে যে কোন ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা প্রতিরোধে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েনসহ বাড়তি সতর্কতা অবলম্বনের কথা জানিয়েছেন মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালী মডেল থানার ওসি মো. নুরুল ইসলাম। রায় ঘিরে কোন সহিংসতা হলে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে বলে হুশিয়ারি দেন তিনি।

এদিকে ঘোষিত রায় প্রত্যাখ্যান করে বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে নগরীর স্টিমারঘাট এলাকায় বিক্ষোভ মিছিলের চেষ্টা করলে মহানগর যুবদলের সভাপতি আক্তারুজ্জামান শামীম ও সাধারণ সম্পাদক মাসুদ হাসান মামুন এবং ১৩ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান তারেকসহ ৩ জনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন কোতয়ালী মডেল থানার ওসি।

শর্টলিংকঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *